8 months ago - Translate

#এডমিন পোস্ট
"ছেলে vs মেয়ে"
গ্রুপে আপনাদের সবাইকে সুস্বাগতম । আপনারা পাশে থাকলে সবাই মিলে এখানে অনেক অনেক মজা করতে পারবো ...
***গ্রুপের কিছু সাধারন নিয়মাবলী***
১) অবশ্যই সকলের সাথে ভালো ব্যবহার করতে হবে।

২) এইটা অ্যাড মি গ্রুপ না, তাই এই ধরণের পোষ্ট করে
কাউকে বিরক্ত করবেন না। কারুর What's App No বা ফোন নং চেয়ে বা নিজের No দিয়ে পোষ্ট করবেন না ।

৩) গ্রুপে অবশ্যই এক বন্ধু অন্য বন্ধুকে সম্মান দেবেন, একই সাথে শালীনতা বজায় রাখবেন ।

৪) গ্রুপে কোনো আর্নিং সাইটের লিঙ্ক বা রেফারেল দিয়ে পোষ্ট করা যাবে না।

৫) গ্রুপে like পাওয়ার আশায় কোনো নগ্ন ছবি বা পর্ন ভিডিও বা লিংক পোষ্ট করবেন না কারন এইটা আড্ডা গ্রুপ।

৬) গ্রুপে কোন মেয়ের বা ছেলের খারাপ ছবি দিয়ে পোস্ট করবেন না। কোনো সেলিব্রিটির ব্যঙ্গ্য ছবি পোষ্ট করা যাবে না।

৭) একজন আরেকজনকে হেল্প করুন, ঝগড়া করবেন না। সবাই বন্ধুর মতো থাকুন।

৮) গ্রুপে কোন প্রকার উস্কানি মূলক, সাম্প্রদায়িক বা রাজনৈতিক পোস্ট এবং মন্তব্য করা যাবে না।

৯) গ্রুপে কেহ বকাবকি করে গ্রুপের পরিবেশ নষ্ট করবেন না

১০) একই পোস্ট বার বার করবেন না।

১১) কোন ধর্মের সাথে তুলনা করা যাবে না বা এই খানে ধর্মের প্রচার করা যাবে না ।

১২) কেউ কারো পার্সোনাল ছবি পোষ্ট করতে পারবেন না।

১৩) গ্রুপের কোন মেম্বারকে ফেইক মনে হলে পোষ্টটিকে এডমিন রিপোর্ট করবেন কিন্ত সেই পোষ্ট এ বার বার ফেইক ফেইক করবেন না। যে কোনো খারাপ পোষ্ট কে এডমিন রিপোর্ট করে আমাদের সঙ্গে সহযোগীতা করবেন ।
ধন্যবাদ সবাইকে ?
Thanks To ???
Keya Aktar

image

আংকেল প্যাড আছে? খুব নীচু স্বরেই দোকানদারকে কথাটা বললাম। দোকানদান নিচের দিকে তার কাজ করতে,করতেই উত্তর দিলো হ্যাঁ আছে।
আমিও তার থেকে হ্যাঁবোধক কথাটা শুনে বললাম আংকেল ছোট প্যাকটা দিয়েন।
এইবার সে কাজের আড়মোড় ভেঙ্গে আমার দিকে একটু অন্য দৃষ্টিতে তাকিয়ে বললো ওওও সেই প্যাড? না নেই।
আমি বুঝতে পারলাম না সে আমার সাথে ঠিক করলো। মজা করলো নাকি আমাকে বিব্রত করতে চাইলো!

বেরিয়ে গেলাম সেইখান থেকে। গেলাম অন্য একটা দোকানে।
এই দোকানে গিয়ে কিছুক্ষন চুপ থেকে আগের ন্যায় ই প্যাড চাইলাম। উনি আমার হাতে দিয়ে বললেন মা পলিথিন আছে? নাকি দিবো? দোকান থেকে বের হবার সময় আংকেল কে কেনো জানি মনের অজান্তেই সালাম দিয়েই বের হলাম।

.
মন টা খারাপ হলেই পার্কে চলে যাই। সেদিন ও গেলাম।
পাশেই একজোড়া প্রেমিক,প্রেমিকা কে দেখলাম নিকৃষ্টতম লীলায় মগ্ন। যা আজকাল ভালোবাসা নামে খ্যাত!
চোখটা সেদিকে যেতেই হাঁটা শুরু করলাম রাস্তায়।
কিছুদুর যেতেই দেখলাম ২ টি মেয়ে বিরিয়ানির প্যাকেট হাতে নিয়ে পথশিশু আর ভিক্ষুকদের হাতে তুলে দিচ্ছে খুদা নিবারনের জন্য। এটাই কার কাছে কি জানিনা তবে আমার কাছে ভালোবাসা!

.

সেদিন এক ভাইয়াকে কতো করে বুঝালাম রক্ত দেবার উপকারিতা। সে ভয় বলে ইগনোর করলো আমার কথাকে।
আজ সে তার গর্ভবতী বউ এর জন্য আমার দ্বারে এসেছিলো কাউকে যোগাড় করে দিতে রক্ত দেবার জন্য!

.

দশমশ্রেনীতে পড়ার সময় স্কুলে যেতে একটা ছেলে রোজ খুব বিরক্ত করতো।
শেষে কোন রকমে এইচএসসি দিয়ে গ্রাম ছাড়লাম।
গ্রামে বেড়াতে গিয়ে শুনলাম তার বোন টা এইবার হাই-স্কুলে উঠেছে।

.

শরীর অসুস্থ ছিলো বিধায় সেদিন বিছানা থেকে উঠতে পারিনি বলে শাশুড়ী বলেছিলো,
"নিজে না পারলে মা,চাচাকে আনতে পারে নাই?

কিছুদিন পরই শাশুড়ী ফোন আলাপে তার মেয়েকে বলছে শরীর অসুস্থ তাও তোকে কাজ করতে হবে? ওরা কি মানুষ নাকি জানোয়ার?
তুই জামাই কে নিয়ে চলে আয় বাড়ি!

.

চিপস এর প্যাকেট হাতে নিতেই পাশে থাকা চাচাতো বোন কে দেখে আম্মুকে বলি তাকে ও একটা দিতে। আম্মু চোখ গরম দিয়ে ভিতরে চলে যায়।

সেদিন ছোট কাকি অনেক ধরনের ফাস্ট ফুড নিয়ে ঘরে ঢুকে যায়। তা দেখে আম্মু বলে দেখ,দেখ কি আক্কেল! সামনে তোরা আসিস দেখে ও তার হাতে তোদের একটা দেবার আক্কেল হলো না।
.

রাত জেগে, জেগে পর্ণ দেখা ছেলেটি সকালে তার বোন স্কুলে মাথায় ওড়না না দিয়ে যেতে রেগে আগুন হয়ে যায়।
বিকেলেই বাজারে গিয়ে বোরকা কিনে মায়ের হাতে এনে দিয়ে বলে কাল থেকে স্কুলে বোরকা পরেই যেনো যায়!

.

এটাই বাস্তব।
প্রতিনিয়ত এইগুলার সম্মুখীন হই আমি,আপনি,সর্বোপরি আমরা সকলেই।
কথায়,কথায় বলি দৃষ্টিভঙ্গি বদলাম জীবন বদলে যাবে।
তবে প্রশ্ন একটাই
কতোটুকু বদলাতে পেরেছি আমাদের দৃষ্টিভঙ্গি?
নাকি আদৌ চেষ্টা করেছি তা!

image

আব্বু ঈদের নামাজ পড়ে বাসায় এসে আম্মুরে জিজ্ঞেস করলেন, 'ছাগলটা কই?'
আম্মু এদিক ওদিক তাকিয়ে বললো, 'কই আবার? দেখ গিয়ে ঘরে বসে মোবাইল টিপতেছে।'
- মোবাইল টিপতেছে মানে?
- মানে বুঝো না? তোমার ছেলের মোবাইল টেপা ছাড়া আর কোনো কাজ আছে?
.
আব্বু কিছুক্ষণ চুপ করে থেকে বিরক্ত গলায় বললেন, 'আমি কুরবানির জন্য কিনে আনা ছাগলটার কথা জিজ্ঞেস করেছি। ওটা কই?'
.
এই ঘটনা শুধু আজকের না। গত একসপ্তাহ আগে যখন আব্বু কুরবানির জন্য হাট থেকে ছাগলটাকে কিনে বাসায় নিয়ে আসছেন, সেদিন থেকেই সমস্যা শুরু হয়েছে। আমি ভুগতেছি আইডেন্টিটি ক্রাইসিসে। আপু বলেছে, 'বাসায় এতোদিন মাত্র একটা ছাগল ছিলো। এখন আরেকটা কিনে আনায় দুইটা ছাগল হলো। সো, ঝামেলা তো একটু হবেই।'
.
ছাগল কিনে আনার পরেরদিনের কথা। আব্বু এসে আম্মুরে বলেছে, 'ছাগলটারে কিছু খাইতে দিছো? সকাল থেকে খাবার দেয়া হয়নাই।'
আম্মু মুখ ঝামটা দিয়ে বললো, 'মাথা ঠিক আছে তোমার? সকাল থেকে অন্তত তিনবার খাইছে। এখনো খাচ্ছে।'
- কি বলো? কে খাবার দিলো?
- তারে খাবার দেয়া লাগে? সে নিজেই নিয়ে খাইছে।
- কি খাইছে?
- যা খায়, তাই। সকালে পরোটা আর ডিমপোচ খাইছে। তারপর চা খাইছে, নুডুলস খাইছে। এখন আবার খিচুড়ি ভাত খাচ্ছে।
আব্বু অবাক হয়ে বললেন, 'ছাগল ডিম পোচ খায়? চা খায়? নুডুলস খায়? কাল যে কাঠাল পাতা আনছিলাম, সেটা দাওনি?'
.
আমি নুডুলস শেষ করে টেবিলে বসে আচার দিয়ে খিচুড়ি মাখাচ্ছিলাম। আম্মু একবার আমার দিকে আরেকবার আব্বুর দিকে তাকালেন। আমি খিচুড়ি ভাতের মধ্যে হাত ধুয়ে উঠে পড়লাম। কেউ আমারে বুঝান, এই জীবন রেখে আসলে লাভ কি?
.
তার দুইদিন পর এক আন্টি আসছে বাসায়। সাথে আন্টির মেয়ে তুলি। তো তারা মা মেয়ে আসছে ছাগল দেখতে। বাসায় ঢুকেই আপুরে পাইছে। জিজ্ঞেস করেছে, 'তোমাদের ছাগল দেখতে আসছি। কত বড় ছাগল? কয় কেজি?'
আমি পাশের রুম থেকে শুনি আপু বলতেছে, 'সারাদিন বসে বসে খায় তো। ওজন মেলা। ষাট কেজি তো হবেই।'
- কি বলো, এ তো বিশাল ব্যাপার। প্রায় গরুর মতই।
- প্রায় কি? আমাদের গরু আর ছাগল দুটোর মধ্যে পার্থক্য নাই। যে ছাগল, সেই গরু। আপনি দেখে আলাদা করতে পারবেন না।
.
তুলি জিজ্ঞেস করলো, 'আপু ছাগলটার গায়ের রঙ কি?'
- রঙ তো ফর্সাই।
- ফর্সা? ছাগলের রঙ ফর্সা কিভাবে হয়? হিহি। আমি দেখবো ফর্সা ছাগল।
.
তুলির হাসি শুনে আমার মনে হলো কেউ ভরা বাজারের মধ্যে আমার প্যান্ট খুলে দিয়েছে। কি লজ্জা! আমি ছোটবেলা থেকে একটু নির্লজ্জ টাইপের না হলে এতোক্ষণ লজ্জায় মরেই যেতাম।
.
এমন সময় ঐ রুমে আম্মু আসলেন। এসে জিজ্ঞেস করলেন, 'কি নিয়ে কথা হচ্ছে?'
আপু বললো, 'আন্টি আর তুলি ছাগলটারে দেখতে আসছে।
আম্মু বললেন, 'তো ছাগলটারে বল দোকান থেকে কিছু নিয়ে আসতে। ওদের নাস্তা দে।'
তুলির আম্মু বিশাল অবাক, 'ছাগল দোকানেও যায়?'
আপু হেসে বললো, 'আমাদের বাসায় তো দুইটা ছাগল। একটা দোকানে যায়, আরেকটা যায় না।'
তুলি হাততালি দিয়ে বললো, 'আমি দোকানে যাওয়া ছাগলটাকে দেখব। ওটাকে কুরবানি দিবা?'
- নাহ, কুরবানি দেয়া ছাগল আলাদা৷ আসো দেখাই রান্নাঘরে আছে।
.
মিনিট দশেক পরে দেখি আমার ঘরের জানালা দিয়ে তুলি আর তুলির আম্মু উঁকিঝুঁকি দিচ্ছে। কি একটা অবস্থা।
.
আজকে ঈদ। ঈদটা চলে গেলে আমি বেঁচে যাই। আব্বু নামাজ থেকে এসে ছাগল খুজছেন। আমি পাশের রুমে ফেসবুকিং করতেছি। এমন সময় শুনি বাইরে চিল্লাচিল্লি হচ্ছে। ছাগলটাকে নাকি পাওয়া যাচ্ছে না। পাওয়া যাচ্ছে না তো যাচ্ছেই না। দড়ি খুলে পালাইছে সম্ভবত। আব্বু রেগে অস্থির।
- কেউ একটু খেয়াল রাখবে না? এখন আমি কি কুরবানি দিব? হুজুর এসে বসে আছে, সে অন্য বাড়িতেও যাবে কুরবানি দিতে।
আম্মু আমতা আমতা করে বললো, 'আমি সকালেও তো দেখলাম'
- সকালে দেখলে এখন যাবে কই? বড় রাস্তার দিকে কেউ গিয়ে খোঁজ নাও। নাহলে অন্য ছাগলের ব্যবস্থা করতে হবে। কিছু তো একটা লাগবে কুরবানির জন্য। তুমার ছেলে কই, ওরে ডাকো তো।
.
হোয়াট! আমাকে কেন ডাকতেছে? আমি শোয়া থেকে উঠে বসলাম। আমি কি যা ভাবতেছি তাই? কোনো সন্দেহ নাই।
.
আমি উঠে বাথরুমে গিয়ে ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে দিলাম। যেটাই হোক, তারপরও আমি কোনো রিস্ক তো নিতে পারিনা, তাইনা??
#কালেক্টেড

image

শহরের খালাতো বোন যখন ঈদে গ্রামের বাড়িতে আসে

image
  • About
  • #এডমিন পোস্ট
    "ছেলে vs মেয়ে"
    গ্রুপে আপনাদের সবাইকে সুস্বাগতম । আপনারা পাশে থাকলে সবাই মিলে এখানে অনেক অনেক মজা করতে পারবো ...
    ***গ্রুপের কিছু সাধারন নিয়মাবলী***
    ১) অবশ্যই সকলের সাথে ভালো ব্যবহার করতে হবে।

    ২) এইটা অ্যাড মি গ্রুপ না, তাই এই ধরণের পোষ্ট করে
    কাউকে বিরক্ত করবেন না। কারুর What's App No বা ফোন নং চেয়ে বা নিজের No দিয়ে পোষ্ট করবেন না ।

    ৩) গ্রুপে অবশ্যই এক বন্ধু অন্য বন্ধুকে সম্মান দেবেন, একই সাথে শালীনতা বজায় রাখবেন ।

    ৪) গ্রুপে কোনো আর্নিং সাইটের লিঙ্ক বা রেফার